তৈলাক্ত ত্বক মন্দ নয়, তৈলাক্ত ত্বকের উপকারিতা

নতুন টিপস ও লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক করুন| আরো পড়তে এখানে ক্লিক করুন| আপনি লিখতে চাইলে এখানে রেজিস্টার করুন | Want to Read and Write in English Language Click Here

তৈলাক্ত ত্বকের উপকারিতা

তৈলাক্ত ত্বক বা অয়েলি স্কিন হওয়ায় অনেকেরই দুশ্চিন্তার শেষ নেই! ত্বকের তৈলাক্তভাব কমানোর জন্য তারা সর্বদা উদগ্রীব থাকেন। সবার ধারণা, তৈলাক্ত ত্বক মানেই ব্রণ, ফুসকুড়ি থেকে শুরু করে ত্বক আরও কালচে হয়ে যাওয়া। অনেকে এজন্য হিনমন্যতায়ও ভোগেন।

তবে তৈলাক্ত ত্বক মানেই যে মন্দ, তা কিন্তু নয়। বরং আপন ভাগ্যবান যে তৈলাক্ত ত্বক পেয়েছেন। তৈলাক্ত ত্বকের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো, ত্বক সবসময় আঁঠালো বা চিটচিকে হয়ে যাওয়া। আবার তৈলাক্ত ত্বকে বেশি ব্রণও হয়ে থাকে।

তবে আপনি জানলে অবাক হবেন, তৈলাক্ত ত্বকের উপকারিতা কতটুকু। চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক,

তৈলাক্ত ত্বকের উপকারিতা –

  •  তৈলাক্ত ত্বক হলে ময়েশ্চরাইজিং ক্রিম কিনতে হবে না। ত্বকের ছিদ্র থেকে বের হওয়া সিবাম, মুখের ত্বককে আর্দ্র রাখার কারণে ত্বক শুষ্ক হতে দেয় না।
  •  ত্বক থেকে যে তেল বের হয়, তাতে ভিটামিন-ই থাকে। যা প্রাকৃতিক সানস্ক্রিন এবং অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। ভিটামিন-ই এর কারণে ত্বক সূর্যের আলো, বায়ুদূষণ এবং ঠান্ডা আবহাওয়া থেকে রক্ষা পায়।
  •  গবেষকদের মতে, তৈলাক্ত ত্বকে খুব সহজে রিঙ্কেলস পড়ে না। এজন্য শোওয়ার আগে হালকা ময়েশ্চারাইজিং ক্রিম ত্বকে ব্যবহার করুন।
  •  তৈলাক্ত ত্বক হলে অতিরিক্ত স্কিন কেয়ার প্রসাধনী ব্যবহারের প্রয়োজন পড়ে না। আর ব্যবহার করলেও সামান্য পরিমাণ হলেই যথেষ্ট।
  •  শীতে তৈলাক্ত ত্বক ফাটার সম্ভাবনা কম থাকে অন্যদের তুলনায়।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*