| |

স্বাস্থ্যের পক্ষে পটল উপকারী না ক্ষতিকর, জেনে নিন

স্বাস্থ্যের পক্ষে পটল উপকারী না ক্ষতিকর

দোর্মা কিবা থেকে ঝোল আরও কত কী তৈরি করা যায় পটল দিয়ে। প্রায় প্রত্যেকের বাড়িতে পটল দিয়ে নানা খাবার তৈরি করে থাকেন।তরকারি থেকে ভাজা নানা ভাবে প্রত্যেকদিন আমার পটল খেয়ে থাকি। জানেন কি  পটল খেলে উপকার হয় না ক্ষতি হয়?  

স্বাস্থ্যের পক্ষে পটল উপকারী না ক্ষতিকর

বিশেষজ্ঞদের মতে, শরীর সুস্থ এবং সতেজ রাখতে প্রত্যেকদিন সবজি তালিকায় রাখতে হবে পটল। নানা রকম শারীরিক সমস্যা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে এই সুলভ সব্জি।  

স্বাস্থ্যের পক্ষে পটল উপকারী না ক্ষতিকর

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, পটলের অল্প মাত্রায় ক্যালোরি আর ফ্যাট রয়েছে। পটল খেলে অনেক সময় ধরে পেট ভর্তি থাকে। যারা ওজন কমানোর চেষ্টা করছেন তাদের জন্য পটল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ । পটলের প্রচুর পরিমাণে ফাইবার রয়েছে যা আমাদের হজম শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। 

স্বাস্থ্যের পক্ষে পটল উপকারী না অপকারী জেনে নিন

লিভার বা গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনালের মতন নানা সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পটল অত্যন্ত উপকারী। কোষ্ঠকাঠিন্যের মতন সমস্যা দূর করতে পটলের বীজ অত্যন্ত কার্যকরী। এছাড়া হজমশক্তি বাড়াতে করতে সাহায্য করে। পটলের রয়েছে ভিটামিন এ, ভিটামিন সি ও প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা ত্বকে বয়সের ছাপ পড়তে দেয় না।

স্বাস্থ্যের পক্ষে পটল উপকারী না ক্ষতিকর

পটল রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে রক্ত পরিশোধন করতে সাহায্য করে। এছাড়া রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। ঔষধ হিসাবে পটল পাতার রস দ্রুত ক্ষত নিরাময় করে। এছাড়াও পটল পাতার রস চুল ঝরা কমাতে সাহায্য করে, পাকাচুল দূরীকরণ করে এবং নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে। 

আয়ুর্বেদিক অনুযায়ী সর্দি – কাশি, ঠান্ডা লাগা  নানা শারীরিক সমস্যা দূরে রাখতে সাহায্য করে পটল। তাছাড়াও পটল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। গলার সমস্যা প্রতিরোধ করে।

কাটা ছড়া দ্রুত কমাতে, মাথার যন্ত্রণা প্রতিরোধ করতে, চুল পড়ার সমস্যা দূর করতে, এবং ত্বকের নানা সমস্যা দূর করতে নিয়মিত খাবারের তালিকায় রাখলে একাধিক অসুখ দূরে থাকে। 

প্রায় প্রতিদিন বহু বাড়িতেই পটল দিয়ে নানা খাবার তৈরি হয়।শুধুই সুস্বাদের জন্য নয়। নানা  উপকার রয়েছে। যেমন চুলকানি, এগজিমার মতো সমস্যা দূর করে। এছাড়াও ত্বকের নানা রকম সমস্যা দূর করতে পটলের জুড়ি মেলা ভার । অনেক সময়ই বাড়িতে ছোটরা পটল খেতে চায় না। সেক্ষেত্রে ঝোল কিংবা রোজকার তরকারিতেই নয়, সুস্বাদুভাবেও তৈরি করে দিতে পারেন পটল।

 

 

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.